Top banner ads

ব্যাংক ড্রাফট ও ট্রেজারি চালান কিভাবে করতে হয়? Bank Draft & Treasury Challan।


( আমাদের ইউটিউব চ্যানেল ভিজিট করার আমন্ত্রন, ক্লিক করুন)

( ভিডিওতে দেখতে উপরে ক্লিক করুন)

উপরের ভিডিও ও নিচের তথ্য দেখে আপনি শিখতে পারবেনঃ
ব্যাংক ড্রাফট ও ট্রেজারি চালান কি , কিভাবে করবেনঃ

কি কাজে দরকার হয়ঃ 
<> সরকারি চাকুরিতে আবেদন করতে
<> বিভিন্ন সরকারি অফিসের ফি- পরিশোধে । ইত্যাদি।



---------------------------------------------------------------------------

ব্যাংক ড্রাফটঃ 

যেকোনো ব্যাংকের মাধ্যমে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে কোন নির্দিষ্ট ফি পরিশোধ করার মাধ্যমিকে ব্যাঙ্ক ড্রাফ্ট বলে। ট্রেজারী চালানের সাথে এটির পার্থক্য হল ট্রেজারি চালান সরকারি কোড নাম্বার এর মাধ্যমে সরকারি কোষাগারে সরাসরি বাংলাদেশ ব্যাংক বা সোনালী ব্যাংকের যেকোন শাখা থেকে জমা করা যায়।
Bank Draft sample.abcbanglabd


আর ব্যাংক ড্রাফট মূলত প্রত্যেক ব্যাংকই করে।  কিন্তু যদি বিজ্ঞপ্তিতে কোন ব্যাংকের নাম উল্লেখ থাকে তাহলে সেই ব্যাংকের থেকে করতে হবে। বাংলাদেশের সাধারণত সোনালী ব্যাংক ট্রেজারি চালান এবং ব্যাঙ্ক ড্রাফ্ট এর জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।  কিন্তু কোন বিজ্ঞপ্তিতে  যদি কোন ব্যাংকের নাম লিখা না থাকে আপনি নিশ্চিন্তে সেটি সোনালী ব্যাংক থেকে করতে পারবেন।
---------------------------------------------------------------------------
ফরম কোথায় পাওয়া যায়ঃ
ফরমটি এক পাতার হয় । এটি সোনালী ব্যাংকের যে কোন শাখায় পাওয়া যায়। অন্যান্য ব্যাংক বললে সে ব্যাংকেও পাওয়া যায়। 
কত কপি পূরণ করে জমা করতে হয়ঃ 
এক কপি সঠিকভাবে পূরণ করে ক্যাশ কাউন্টারে জমা করতে হয়।
---------------------------------------------------------------------------

ফরমটি পূরণ করার নিয়মাবলীঃ (ছবির সাথে মিলিয়ে দেখবেন)

১. প্রথম অংশে , টি টি, নগদ বা চেকে দিলে সেটিতে টিক দেবেন ঠিক দিবেন । এবং কত টাকা দিবেন তা কথায় লিখে দিবেন।

২. দ্বিতীয় অংশে, আপনার নাম ঠিকানা মোবাইল নাম্বার লিখে দিবেন। যাকে পাঠাবেন তার ফোন নাম্বার ও হিসাব নাম্বার থাকলে থাকলে লিখে দিবেন। সহকারী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে সাধারণত ফোন নাম্বার ও হিসাব নাম্বার থাকে না।

 ৩. নগদ টাকা চেকের বিবরণঃ
  নগদে দিলে নগদ , চেকে দিলে চেক লিখুন।

৪. প্রাপকের নাম এবং হিসাব নাম্বারঃ 
  বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত যে বরাবর করতে বলা হয়েছে, তাহার পূর্ণ নাম ঠিকানা এবং হিসাব নাম্বার যদি    থাকে লিখতে হবে।

৫. এবং ব্যাংকটি কোন জেলার কোন শাখায় অবস্থিত। যেমনঃ ঢাকা জেলার মতিঝিল শাখায়।             অনেক সময় এই বিষয়টি একটু সমস্যা হতে পারে। এতে করে আপনি যখন জমা দিবেন তখন     ব্যাংকের অফিসার কে জিজ্ঞেস করে নিবেন। এই ঠিকানাটি কোন ব্যাংকের কোন শাখায়।


৬.  টাকার বিবরণঃ
 অংকে ও কথায় লিখুন । শতকরা একটি চার্জ আছে সেটি ব্যাংকের কাউন্টারে বা অফিসার কে     জিজ্ঞেস করুন। এবার চেক করুন সব ঠিক আছে কিনা । ঠিক থাকলে ক্যাশ কাউন্টারে জমা   করুন।

সর্বশেষ কিছুক্ষণ অপেক্ষা করলে, আপনাকে ওই ব্যাংকের একটি চেক এর আকারে ব্যাঙ্ক ড্রাফ্ট নামক কাগজটি দেওয়া হবে।
---------------------------------------------------------------------------

লক্ষ রাখুনঃ 
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে এই ব্যাংক ড্রাফটের নাম্বার এবং তারিখ শাখার নাম লিখতে হয়। সেটি লিখতে ভুলবেন না। 
প্রয়োজনে এক কপি ফটোকপি করে রেখে দিন।

ট্রেজারি চালানঃ 

ট্রেজারি চালান সরকারি বিভিন্ন চাকুরীর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও বিভিন্ন সরকারি কাজে ব্যবহৃত ফি বাবদ পরিশোধের একটি 
মাধ্যম। অর্থাৎ ট্রেজারি চালানের চালানের মাধ্যমে আপনি সরকারি বিভিন্ন ফি পরিশোধ করতে পারেন।

Treasury Challan sample.abcbanglabd
কোথায়  করতে হয়ঃ
বাংলাদেশের ট্রেজারি চালান বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংক সম্পন্ন করে বা উক্ত ব্যাংকের মাধ্যমে করতে হয়।
সচরাচল সোনালী ব্যাংকেই ট্রেজারী চালানের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কারন সোনালী ব্যাংকের শাখা সর্বত্রই পাওয়া যায়। 
যেখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের শাখা সর্বত্র নেই ।

ট্রেজারি চালান ফরম কোথায় পাওয়া যায়ঃ 

সোনালী ব্যাংক এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের যে কোন শাখায় পাওয়া যায়। এছাড়া বর্তমানে অনলাইনে ফর্মটি পাওয়া যায়।

একটি আবেদনের জন্য কত কপির প্রয়োজনঃ

একটি আবেদনের জন্য একত্রে তিন কপি লিখে জমা করতে হয়।

ফরম টি লেখার নিয়মাবলী নিচে দেওয়া হলোঃ  (ছবির সাথে মিলিয়ে দেখবেন) 

১. যে তারিখে ব্যাংকে জমা করছেন সেই তারিখ দিবেন।
২. ব্যাংকটি কোন জেলার কোন শাখায় অবস্থিত। (উদাহরণস্বরূপ  ঢাকা জেলার নিউমার্কেট শাখায়)

৩. কোড নাম্বারটিঃ আপনার বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ থাকবে। সতর্কতার সহিত লিখবেন এবং কোডটি মিলিয়ে দেখবেন। 
৪.  যাহার মাধ্যমে প্রদত্ত হইল তাহার নাম ও ঠিকানাঃ  অর্থাৎ যে জমা করছে তার নাম। এখানে নিজ।
৫. যে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ হইতে টাকা প্রদত্ত হইল ঃ
এখানে যে আবেদন করছেন বাজি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করছে তার নাম-ঠিকানা 
পদবী ইত্যাদি 
যদি থাকে লিখতে হবে।
৬. কি বাবদ জমা দেওয়া হইলঃ
অর্থাৎ কিসের ফি জমা দিচ্ছেন। পরীক্ষার ফি হলে 'পরিক্ষার ফি' অন্য কোন ফি হলে সেই ফি এর নাম নাম লিখতে হবে।

৭. মুদ্রা / নোট এর বিবরণঃ
নগদ টাকা দিলে নগদ চেক দিলে চেকের নাম্বার উল্লেখ করে দেবেন।

৮. বিভাগের নাম এবং চালানের পৃষ্ঠাঙ্কনকারী  কর্মকর্তার নাম পদবী । 

এখানে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা বরাবর যে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নামে করতে বলা হয়েছে সেটি হুবহু লিখতে হবে।
৯. নিচে টাকার অংক কথায় এবং তারিখ লিখে ব্যাংকের কাউন্টারে জমা করতে হবে।

সবশেষে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পরে আপনার হাতে চালানের কপি পাবেন। পোস্ট বা কুরিয়ার করার আগে প্রয়োজনে এক কপি ফটোকপি করে রেখে দিবেন।

লক্ষ রাখুনঃ 
নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে এই ব্যাংক ড্রাফটের বা চালান নাম্বার এবং তারিখ ও শাখার নাম লিখতে হয়। সেটি লিখতে ভুলবেন না। 

প্রয়োজনে এক কপি ফটোকপি করে রেখে দিন। 
---------------------------------------------------------------------------
---------------------------------------------------------------------------
---------------------------------------------------------------------------


কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.