Top banner ads

ই-টিন রেজিস্ট্রেশন । e TIN Registration Tutorial in Bangla । TIN Certificate




এই ভিডিওটি দেখলে  আপনি কি করতে ও শিখতে পারবেনঃ

- TIN Certificate কীভাবে খুলতে হবে ?
- মাত্র কয়েক মিনিটে টিন নাম্বার তৈরি করার নিয়ম । 


টিন নাম্বার/ সার্টিফিকেট কেন প্রয়োজন হতে পারেঃ 
প্রধানত নিম্নে উল্লেখিত কারনে প্রয়োজন হবে। 
এছাড়া আরও অনেক ক্ষেত্রে প্রয়োজন হতে পারে। 
  • আপনি বাংলাদেশের আমদানি রপ্তানি ব্যবসা করতে হলে তার রেজিস্ট্রেশন করার ক্ষেত্রে টিন সার্টিফিকেট অবশ্যই প্রয়োজন হবে।
  • ট্রেড লাইসেন্স করার ক্ষেত্রে তো অবশ্যই প্রয়োজন হবে। ধরুন আপনি দেশের কোন অঞ্চলে/ শহরে ব্যাবসা করতে চাচ্ছেন । সে ক্ষেত্রে টিন সার্টিফিকেট  করা বাধ্যতামূলক।
  • আপনার যদি বীমা থাকে তাহলে বীমা কোম্পানিকে টিন সার্টিফিকেট জমা দিতে হবে।
  • ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড উত্তোলন করতে চান টিন সার্টিফিকেট  বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
  • বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম অনুযায়ী কোম্পানি রেজিস্ট্রেশন করার জন্য প্রথমে আপনাকে টিন সার্টিফিকেট খুলতে হবে।
  • নতুন অথবা পুরাতন যে কোন গাড়ি কিনি রেজিস্ট্রেশন করতে গেলে টিন সার্টিফিকেট থাকতে হবে।
  • ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়ার সময় টিন সার্টিফিকেট জমা করতে হবে।
  • বাণিজ্যিক টেন্ডার দরপত্র সমূহের আবেদনের জন্য টিন সার্টিফিকেট থাকা বাধ্যতামূলক।
  • মেডিসিন অথবা ড্রাগ লাইসেন্স করতে গেলে টিন সার্টিফিকেট থাকতে হবে। এমন আরও নানাবিধ দরকারে প্রয়োজন হতে পারে ।


টিন সার্টিফিকেট তৈরি করার জন্য কি কি প্রয়োজনঃ -----ন্যাশনাল আইডি কার্ড বাধ্যতামূলক।

ফরম ফিলাপ করার আগে নিচের 

নিচের চিত্রগুলো দেখে নিন, তাহলে করতে গেলে বুঝবেন কি কি ইনফরমেশন বা তথ্য আপনার প্রয়োজন হবে টিন রেজিস্ট্রেশন করার জন্য।

ফরম ফিলাপ করা খুবই সোজা সর্বোচ্চ ১০ মিনিট সময় ব্যয় হতে পারে।


নতুন পদ্ধতিতে টিআইএন রেজিস্ট্রেশন ও রি-রেজিস্ট্রেশনের শুরুতে প্রত্যেককে প্রথমে অ্যাকাউন্ট তৈরী করতে হবে।









Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com



Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com





Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com 



Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com




Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com



Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com




Tin Registration & Certificate.abcbanglabd.com



e-Tin প্রাপ্তির নিয়ম
করদাতা হিসাবে রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়া দ্রুত ও সহজতর করতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ই-টিআইএন করদাতা হিসাবে (e-TIN) রেজিষ্ট্রেশন পদ্ধতি প্রবর্তন করেছে। এ পদ্ধতিতে কয়েকটি সহজ ধাপ পেরোনেরার মাধ্যমে আপনি পেতে পারিন ১২ ডিজিটের একটি নতুন টিআইএন। বর্তমানে যাদের টিআইএন আছে, তাঁদেরকেও নতুন পদ্টধতির টিআইএন এর জন্য রি-রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এক্ষেত্রে জাতীয় চরিচয়পত্র, মোবাইল ফোন নম্বর ও কোম্পানীর ক্ষেত্রে RJSC এর নিবন্ধন নম্বর প্রয়োজন হয়।


1 টি মন্তব্য:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.