Top banner ads

আপনার স্যামসাং ফোনটি আসল না নকল। চেক করা শিখুন । How To Check Samsung Phone is Original or Fake?







আপনার স্যামসাঙ ফোনটি আসল নাকি নকল?
আবার আসল হলে , ফোনটির অপশন ( ক্যামেরা, স্পীকার, সেন্সর, স্ক্রীন, টাচ, বলিউম ইত্যাদি ঠিক আছে কিনা ?
তা আপনি নিজেই যাচাই করতে পারবেন। উপরের ভিডিওতে সেটই সংক্ষেপে দেওয়া আছে।
যা শিখলে কখনও না কখনও কাজে লাগতে পারে।


১০০% নিশ্চিত না হলেও আপনি স্বল্প সময়ে এই টিপসগুলো ফলো করে একটি স্যামসাঙ ফোন সম্পর্কে ভাল একটা ধারনা নিতে পারেন।


ভাল ফোন ভাল দোকানে/ মার্কেটে পাওয়া যায়। তাই সবসময় চেষ্টা করবেন বিশ্বস্ত  মার্কেট থেকে ফোন কিনতে।

এই ভিডিওর উদ্দেশ্য এই নয় যে , সকল/ বেশিরভাগ স্যামসাঙ ফোন নকল। এর উদ্দেশ্য হল , এই টিপসগুলো নকল ফোনে কাজই করেবে না।  আসল ফোনেও কিন্তু সমস্যা থাকে পারে।
যা কিনা আপনি দেখানো নিয়ম অনুযায়ী বের করতে পারেন।


নিম্নে টেস্টের কিছু নমুনা দেওয়া হল/
 কোড সহঃ

samsung fake real test. abcbanglabd.com




samsung fake real test. abcbanglabd.com




samsung fake real test. abcbanglabd.com




samsung fake real test. abcbanglabd.com

সাম্সং গ্রুপ বা স্যামসাং গ্রুপঃ

(হাঙ্গুল্) একটি দক্ষিণ কোরীয় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান। এরা বিভিন্ন খাতে ব্যবসা করে থাকে, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে সাম্সেওং ইলেকট্রনিক্স যারা বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। সাম্সেওং দল কোরিয়ার সর্ববৃহৎ প্রতিষ্ঠান।

এর বর্তমান চেয়ারম্যান হচ্ছেন "ই গেওন্-হ্বি, যিনি স্যামসাং-এর প্রতিষ্ঠাতা 'লি বিয়ং চল'-এর তৃতীয় সন্তান। কোরীয় ভাষায় "সাম্সং"-এর অর্থ "তিন তারকা"।স্যামস্যাং শুধু মোবাইল এর ব্যবসাই করে না পাশাপাশি আরো অনেক ব্যবসা করে। এর মাঝে উল্লেখযোগ্য হল জাহাজ নির্মাণকেন্দ্র। 

এর আয়তন ৪০ কোটি বর্গফুট যা গড়পড়তা ২০৫টি ফুটবল মাঠের সমান। পৃথিবীর সবচেয়ে উচু দালান বুর্জ আল খলিফা নির্মাণ করেছে স্যামসাং। মোট আয় ৩০ হাজার ৫০০ কোটি ডলার (২০১৪)। ১ হাজার ৪০০ কোটি ডলার ২০১৩ সালে শুধু বিজ্ঞাপনে খরচ করেছে। ৪ লাখ ৮৯ হাজার কর্মী কাজ করে যা অ্যাপল, গুগল ও মাইক্রোসফট এর সম্বিলিত সংখ্যার চাইতেও বেশি। ১৭ শতাংশ দক্ষিণ কোরিয়ার মোট জিডিপিতে স্যামসাং এর অংশ।



ইতিহাসঃ 
১৯৩৮ থেকে ১৯৭০

১৯৩০ সালে ডেইগ শহরে সানঘো সদর দপ্তর
১৯৩৮ সালে, ইউইয়াং কাউন্টির মধ্যে বিশাল ভূসম্পত্তি পরিবারের লি বিয়ং চল (১৯১০–১৯৮৭) ডেইগ শহরের কাছাকাছি আসেন এবং স্যামসাং সানঘো প্রতিষ্ঠা করেন, সু-ডং(বর্তমানে ইনয়ো-ডং) -এ অবস্থিত চল্লিশ কর্মী নিয়ে একটি ছোট ব্যবসায়ী কোম্পানী চালু করেন।উৎপাদিত মুদিখানার পণ্যদ্রব্য মোকবেলায় সমগ্র শহরে তারা নিজস্ব উৎপাদিত নুডলস সরবরাহ করা শুরু করে।



১৯৪৭ সালে লি এর মূল অফিস সিউল-এ স্থানান্তর করেন।যখন কোরিয়ান যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ে লি সিউল ছাড়তে বাধ্য হন এবং বুসান শহরে চেল যেডাং নামের চিনি শোধনাগার চালু করেন।যুদ্ধের পর, ১৯৫৪ সালে লি চাল মোজিক প্রতিষ্ঠা করেন এবং চিমযান-ডং,ডে। 

কোন মন্তব্য নেই

Blogger দ্বারা পরিচালিত.